নিউজার্সীতে এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশনের সেনসাস বিষয়ক সভা

March 18, 2020, 2:04 PM, Hits: 126

নিউজার্সীতে এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশনের সেনসাস বিষয়ক সভা

সালাহউদ্দিন আহমেদ, হ-বাংলা নিউজ, নিউজার্সী থেকে : যুক্তরাষ্ট্রে ইউএস সেনসাস-২০২০ এর গণনা শুরু হয়েছে। গত ১২ মার্চ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এই গণনা চলবে আগামী ১ এপ্রিল পর্যন্ত। অন্যান্যবারের মতো এবারও সঠিকভাবে জনসংখ্যা গণনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রব্যাপী ব্যাপক প্রস্তুত নেয়া হয়েছে। ইউএস সেনসাস ব্যুরো সহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে চলছে উদ্ধুদ্ধকরণ সভা-সমাবেশ। জনস্বার্থে বাংলা পত্রিকা ও টাইম টেলিভিশন পরিবারও সেনসাস বিষয়ক উদ্বুদ্ধকরণ সভায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

সেনসাস-২০২০ সফল করতে এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশন টাইম টেলিভশনের সহযোগিতায় গত ১২ মার্চ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিউজার্সীর পেটারসনে এক সভার আয়োজন করে। বাংলাদেশী-আমেরিকান অধ্যুষিত পেটারসর সিটির দুই নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিরম্যান শাহীন খালিকের অফিসে আয়োজিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন টাইম টেলিভিমশন-এর সিই ও বাংলা পত্রিকা’র সম্পাদক আবু তাহের। সভায় সেনসাস বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশন-এর রিচার্স এন্ড পলিসি ডিরেক্টর হাওয়ার্ড শিস। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলম্যান শাহীন খালিক, এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশন-এর নিউজার্সীর আউচরীচ অর্গানাইজার মারাম টাইচ প্রমুক। 

সভায় বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে সেনসাস বিষয়ক আগ্রহে সংশ্লিস্টরা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

আবু তাহের তার স্বাগত বক্তব্যে সেনসানে অংশ নেয়ার গুরুত্বের কথা তুলে ধরেন এবং বৈধ-অবৈধ সকলকেই সেনসাসে অংশ নেয়ার আহবান জানান। এব্যাপারে বাংলা পত্রিকা ও টাইম টেলিভিশন পরিবার সাধ্যমত সহযোগিতা করবে। বিশেষ করে নাগরিকদের উদ্বুদ্ধ করতে এশিয়ান আমেরিকান ফেডারেশন-এর সাথে কাজ করবে। 

সভায় হাওয়ার্ড শিস বলেন, সেনসাস বিষয়ক তথ্য গোপন রাখা হবে এবং এটি ইমিগ্রেশন বিষয়ে কোন সমস্যা করবে না। তাই যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী সবাইকে সেনসাসে অংশ নেয়া উচিৎ। তিনি বলেন, কোন এলাকায় কতজন লোক বাস করে তার উপর নির্ভর করে সিটি ও ষ্টেট প্রশাসন এবং ফেডালের সরকার বাজেট। আর এই বাজেদের সাথে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্য সহ নানা অধিকারের বিষয় জড়িত। 

কাউন্সিলম্যান শাহীন মালিক বলেন, আমার ধারণা নিউজার্সীর পেটারসন সিটি সহ আশপাশের এলাকায় অন্তত ২০ হাজার বাংলাদেশীর বসবাস। কিন্তু কাগজে কলমে এতো বাংলাদেশীর তালিকা খুঁজে পাওয়া যাবে না। অথচ পেটারসন সিটি এখন বাংলাদেশী-আমেরিকান অধ্যুষিত এলাকা। তিনি সকল বাংলাদেশি সহ অন্যান্য কমিউনিটির লোকদের সেনসাসে অংশ নেয়ার আহবান জানান এবং নিজেদের অধিকার আদায়ে আরো সক্রিয় হওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ