খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে সিএনএন (CNN) ভবনের সামনে ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র বিক্ষোভ

December 9, 2019, 10:10 AM, Hits: 906

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে সিএনএন (CNN) ভবনের সামনে ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র বিক্ষোভ

হ-বাংলা নিউজ, হলিউড থেকে : বাংলাদেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, গণতন্ত্রের মা, আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপির উদ্যোগে যুক্তরাষ্ট্রের লস এঞ্জেলেসে সিএনএন (CNN) ভবনের সামনে অবস্হান ও বিক্ষোভ কর্মসুচি পালন করা হয়েছে। ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপির সভাপতি বদরুল আলম চৌধুরী শিপলুর সভাপতিত্বে সমাবেশ পরিচালনা করেন দলের সাধারন সম্পাদক এম ওয়াহিদ রহমান। ৮ ডিসেম্বর রবিবার দুপুরে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া ও ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে শতশত সাধারন প্রবাসী বাংলাদেশী, বিশিষ্ট নাগরিকগণ, সাংবাদিক ও দেশী-বিদেশী মিডিয়াকর্মীরা, বিএনপির বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভাণুধ্যায়ীরা রাস্তার পাশে দাড়িয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীর প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবী জানিয়ে সমাবেশে বিএনপি নেতৃবৃন্দরা বলেন, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, দুইবারের বিরোধী দলীয় নেত্রী, বাংলাদেশের ‘সবচেয়ে জনপ্রিয়’ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে প্রচলিত রীতি মেনে জামিন না দিয়ে অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। বিচার বিভাগের এই অমানবিক সিদ্ধান্তে সমস্ত জাতি শুধু হতাশই হয়নি, বিক্ষুব্ধ হয়েছে। আমরাও প্রবাসে থেকে উদ্বিগ্ন-বিক্ষুব্ধ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতিতে গোটা জাতি আজকে উদ্বিগ্ন। অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্যে তাঁর মুক্তি অবশ্যই প্রয়োজন। 

বাংলাদেশে এখন কোনো গণতন্ত্র নেই। বাংলাদেশকে বাঁচাতে এবং গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে খালেদা জিয়ার বিকল্প নেই। জনগণ সবকিছু বোঝে, তাই জনগণ আজ রাজপথে নেমে আসতে শুরু করেছে। পুলিশ আর সন্ত্রাসীদের দিয়ে জনমতকে আটকে রাখা যাবেনা, জনগণ রুখে দাড়াবে ও প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। অবৈধ আওয়ামী সরকারের সকল অন্যায়-অবিচার, দুর্নীতি, হত্যা, খুন-গুম, হামলা-মামলার হিসাব জনগণ একদিন ঠিকই বুঝে নিবে। ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপির সমাবেশ চলাকালীন সময়ে সড়কে চলাচলকৃত জনসাধারণের অনেক পরিবহণ ও গাড়ি থেকেও স্হানীয় প্রথা অনুযায়ী 'হর্ণ' বাজিয়ে সমাবেশের প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করতে দেখা গিয়েছে।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবীতে সিএনএন (CNN) ভবনের সামনে অবস্হান ও বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্হিত ছিলেনঃ বদরুল চৌধুরী শিপলু, এম ওয়াহিদ রহমান, নজরুল ইসলাম চৌধুরী কাঞ্চন, মোঃ আঃ বাছিত, সামসুজ্জোহা বাবলু, মাহবুবুর রহমান শাহীন, মুর্শেদুল ইসলাম, নিয়াজ মোহাইমেন, সাইফুল আনসারী চপল, মাতাব আহমদ, অপু সাজ্জাদ, আফজাল শিকদার, সালাম দাড়িয়া, শওকত হোসেন আনজিন, সাঈদ আবেদ নিপু, জুনেল আহমেদ, আহসান হাবীব রুমি, মিকায়েল খান রাসেল, শাহাদাত হোসেন শাহীন, জহিরুল কবির হেলাল, মার্শাল হক, নুরুল ইসলাম, এলেন খান, মিজানুর রহমান, আবদুর রহিম, ফারুক হাওলাদার, সৈয়দ নাসিরউদ্দিন জেবুল, মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল, বদরুল আলম মাসুদ, দেলোয়ার জাহান চৌধুরী, লায়েক আহমেদ, রফিকুজ্জামান জুয়েল, ইলিয়াছ মিয়া, শাহতাব কবীর ভূঁইয়া শান্ত, শাহীন হক, আলমগীর হোসেন, রনি জামান, এ্যাডঃ নুরুল হক, সজয় আহমেদ মনির, মারুফ খান, লোকমান হোসাইন, কামাল হোসেন তরুন, মোশারফ হোসেন ইমন, রেজাউল হায়দার চৌধুরী বাবু, কামরুল আলম চৌধুরী, খোরশেদ আলম রতন, সামিদুল ইসলাম, সাঈদ খান, রেজাউল করিম জামিল, হাফেজ মোঃ বেলাল, শাহেদ আহমেদ, কহিনুর রহমান, ইফতেখার হোসেন ফাহিম, মিজানুর রহমান জমশেদ, কবির আহমেদ, হোসেন আহমেদ, এমাজউদ্দিন চৌধুরী দুলাল, আবদুল মোতালেব, আব্দুল হাকিম, খসরু রানা, আসাদুজ্জামান মুক্তা, নাজিম খান টিটু, সুমেন আহমেদ, আবদুল মান্নান, ফয়সাল হোসেন সিদ্দিকী, ফয়সাল সালাম, আবদুল মুনিম, আবুল খায়ের, শামসুল আলম, নাহিদুল ইসলাম, আবুল কায়সার, এ্যাডঃ শামসুন খান লাকী, ফরিদা বেগম, নয়ন বড়ুয়া, এ কে এম আসিফ, শহিদুল ইসলাম পলাশ, খায়রুল ইসলাম, সৈয়দ দেলোয়ার হোসেন দিলির, ডাবলু আমিন, খন্দকার আলম, আবুল ইব্রাহিম, মানিক চৌধুরী, মিশর নুন, ফারুক সরকার, গিয়াস উদ্দিন, আবদুল আহাদ, এহসান আহমেদ, আবুল বাশার, দেলোয়ার আহমেদ, রফিকুল ইসলাম রিতি, নজরুল ইসলাম, আবুল হাসনাত চৌধুরী মন্টু, আবদুল হাসিব, রফিকুল ইসলাম চৌধুরী, হাসানুজ্জামান মিজান, মোঃ হাবিব, মাইনুল হক, মশিউর রহমান ও জিয়াউল হক জিয়াসহ অনেকেই।

  

 
সর্বশেষ সংবাদ
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ