ভার্জিনিয়ায় বাংলাদেশি আমেরিকান আইটি প্রফেশনাল অরগানাইজেশন(বাইটপো) র বার্ষিক বনভোজন সমপন্ন

June 18, 2019, 11:56 AM, Hits: 894

ভার্জিনিয়ায় বাংলাদেশি আমেরিকান আইটি প্রফেশনাল অরগানাইজেশন(বাইটপো) র বার্ষিক বনভোজন সমপন্ন

সুব্রত চৌধুরী, হ-বাংলা নিউজ, ভার্জিনিয়া থেকে : গত ১৬ জুন ২০১৯ রবিবার উডব্রীজ,ভার্জিনিয়ার লিসেলবেনিয়া পার্কে বাংলাদেশী আমেরিকান ইনফরমেশন টেকনোলজি প্রফেশনাল অরগানাইজেশন (বাইটপো)’র আয়োজনে বার্ষিক বনভোজন ও ফাদার’স ডে উদযাপন করা হয়। সারাদিন ব্যাপী  এ অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি  উপস্থিত ছিলেন। বাংলার ঔতিহ্যবাহী পরোটা ভাজি, ডিম ভাজি এবং আলু ভাজি দিয়ে সকালের নাস্তা শুরু হয় সকাল ১০টায় ,এরপর বেলা ১২টা থেকে চিকেন বার বারবাকিউর সাথে চলে  ঔতিহ্যবাহী মেজবান। গরুর মাংস, খাসি-চনার ডাল, লাউ-চিংড়ী ও সাদাভাতের সাথে দেশি সালাদ। সবশেষে  রসমালাই এবং সুস্বাদু পায়েস এবং চা, পান-সুপারি খেয়ে ঠোঁট  রঙিন করে তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে তুলতে অতিথিবৃন্দ সুর্যাস্ত পর্যন্ত বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।বনভোজনে ছিল ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের ও মহিলাদের অংশগ্রহনে  খেলাধুলা পর্ব, বাবা দিবসে বাবাদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান, সাথে ছিল গান বাজনা। এককথায় পুরো অনুষ্ঠান ছিল আনন্দ ও ছন্দময়। 

দুপুর বারোটায়  বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠান উদ্ধোধন করেন ই-লার্নিং বই এর লেখক ও নলেজ ক্যারিয়ার জ্ঞানবাহন এর প্রতিষ্ঠাতা ডক্টর বদরুল হুদা খান। এ সময় বাইটপোর সকল সদস্যবৃন্দ, বিশিস্ট গায়িকা ডঃ সীমা খান ও ওয়াশিংটন বাংলাদেশ দূতাবাসের  প্রতিনিধি রাষ্ট্রদুতের পিএস প্রিয়ন্তী  সহ কমিউনিটির গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসির অনেক সংগঠনের প্রতিনিধি সহ কমিউনিটির সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ,  লেখক সাংবাদিক সহ সুধী বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বাইটপোর সদল সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন বাইটপোর অন্যতম বিশিষ্ট সদস্য সামছুদ্দীন মাহমুদ। এরপর বাইটপোর সকল সদস্য একে একে তাদের নিজ নিজ পরিচয় তুলে ধরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন,যথাক্রমে সামছুদ্দীন মাহমুদ, মোহাম্মেদ রশীদ,সাইফুল্লাহ খালেদ, তারিকুল ইসলাম অশ্রু, হাবিবুল্লাহ ভুইয়া কচি, মোঃ নিজামউদ্দিন, মোঃ মিজানুর রহমান, মোহাম্মদ হায়দার,  আবদুল মোমেন, আয়ান রশীদ, রফিকুল ইসলাম আকাশ, সুমন কর্মকার, তৈয়বুর হাসান, তানভীর হায়দার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের উদ্ভোধক ডঃ বদরুল খান তার বক্তব্যে বাংলাদেশি আইটি প্রফেশনালদের মার্কিন যুক্তরাষ্টের বিভিন্ন কর্পোরেট অফিস এবং সরকারী অফিসে কাজ করার প্রশংসা করে বলেন, গার্মেন্টস সেক্টরের পরে বাংলাদেশের আইটি সেক্টর সবচেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হিসাবে আবির্ভুত হয়েছে। আইটি প্রফেশনালরা তাদের অভিজ্ঞতা দিয়ে কেবল কমিউনিটিতে নয় বাংলাদেশের আইটি খাতকেও বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করতে পারে। আগামী দিনে আরো  বাংলাদেশিদের একটি বিশাল অংশ এ সেক্টরে প্রবেশ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন,এই  প্রফেশনালরা দেশের রেমিটেন্সে বিশেষ সহায়তা প্রদান করতে সক্ষম হবেন,  সাথে সাথে বাংলাদেশের আইটি খাত উন্নয়নে বিশেষ ভুমিকা রাখবে। এ বিষয়ে বাইটপো বাংলাদেশ সরকারের সাথে একটি সেতুবন্ধন হিসাবে কাজ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বাইটপোর সকল কাজে বিশেষ সহায়তা প্রদানের ও আশ্বাস দেন। 

জনাব সামছুদ্দীন মাহমুদ তার বক্তব্যে, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন আইটি প্রফেশনালদের একই প্লাটফর্মে নিয়ে এসে সংগঠনের কার্যক্রম, আদর্শ ও উদ্দেশ্যের বর্ণনা দিয়ে বলেন, আগামী দিনে সংগঠনের কার্যক্রম কেবল নিজেদের মধ্যেই নেটওয়ার্কিং বৃদ্ধি ও পারষ্পরিক সহায়তার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবেনা, কমিউনিটির বিভিন্ন কার্যক্রমে সহায়তা এবং সর্বোপরি আইটি সেকটরে বাংলাদেশ সরকারকে বিভিন্ন কাজে সহায়তা প্রদানের ও আশ্বাস দেন। এছাড়া আগামীতে বাইটপোর আরো তিনটি অনুষ্ঠানের ঘোষনা প্রদান করেন। অনুষ্ঠানগুলো হচ্ছে যথাক্রমে আগামী বছর ২১ জুন ২০২০ “বার্ষিক পিকনিক ও ফাদার’স ডে উদযাপন”, আগামী অক্টোবর ২০১৯ “বাইটপো সকার গোল্ডকাপ  টুর্ণামেন্ট” এবং জানুয়ারী ২০২০ “আইটি স্টার এওয়ার্ড” প্রদান । পরবর্তিতে এ বিষয়ে  আরো বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হবে।

অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় পর্বে ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের ও মহিলাদের খেলাধুলায় সহায়তা করেন আয়ান রশীদ ও নুর মোহাম্মদ, এর পর ফাদার’স ডের বিশেষ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন তারিকুল ইসলাম অশ্রু, তাকে সহায়তা করেন হাবিবুল্লাহ ভুইয়া ও নিজামউদ্দীন। বারবিকিউতে সহায়তা করেন সাইফুল্লাহ খালেদ, মোহাম্মদ হায়দার, আবদুল মোমেন, তৈয়বুর হাসান, মেজবান ও অন্যান্য রান্নায় সহায়তা করেন মোহাম্মদ রশীদ, মিজানুর রহমান, সুমন কর্মকার, রেদওয়ান চৌধুরী, বোরহান আহমেদ, সরফওয়াজ ও স্যাম রিয়া(মাহমুদ ভাবী)। 

ফটোগ্রাফী ও ভিডিওতে সহায়তা করেন রফিকুল ইসলাম আকাশ ও দেওয়ান বিপ্লব। মিউজিক ও সাউন্ড সিস্টেমে সহায়তা করেন উজ্জল হোসেন ও তুশার রহমান। র‌্যাফল ড্র তে সহায়তা করেন ফাইয়াজ মাহমুদ ও ফারিয়া খালেদ। র‌্যাফল ড্রতে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার ছিল যথাক্রম ২২ ক্যারেট স্বর্ণের চেইন, গেস হাতঘড়ি ও আন ক্লেইন হাতঘড়ি। পুরস্কারগুলি স্পন্সর করেন যথাক্রমে এজেএম হোসেন, কবির পাটোয়ারী, ও মাসুদ আহসান। ফাদার’স ডের কেক কাটেন সর্ব শ্রদ্ধেয়, সংগঠনের  সদস্য মিজানুর রহমানের বাবা মোঃ সিরাজুল ইসলাম, সাইফুল্লাহ খালেদের বাবা রহমান বিশ্বাস ও তানভীর হায়দার এর বাবা আবুল ফজল। বাবা দিবসে সকল বাবাদের সন্মানে একটি বিশেষ বাইটপো লোগোযুক্ত কফি কাপ উপহার প্রদান করা হয়। 

 
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ