আনন্দ-উল্লাসে সম্পন্ন হল ‘মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইন্ক’-এর বার্ষিক বনভোজন

July 11, 2018, 7:43 PM, Hits: 1998

আনন্দ-উল্লাসে সম্পন্ন হল ‘মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইন্ক’-এর বার্ষিক বনভোজন

হ-বাংলা নিউজ :  যুক্তরাষ্টের নিউ ইয়র্কে বসবাসকারী প্রবাসী মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুরবাসীর পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছিল নিউইয়র্কের ওয়েস্ট চেস্টার কাউন্ট্রির জর্জেস আইল্যান্ড পার্ক গত ৮ জুলাই, রবিবার। ‘মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইন্ক’-এর বার্ষিক বনভোজনে শত শত মানুষের উপস্থিতি বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের আনন্দ-উল্লাস ছিল সত্যিই উপভোগ্য। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে বনভোজন উদ্ভোধন করেন বনভোজন আয়োজনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ‘মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইন্ক’-এর প্রধান উপদেষ্টা, বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক-এর বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জনাব এম. আজিজ।

 বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক-এর বোর্ড অব ট্রাস্টির মেম্বার জনাব ওয়াসী উদ্দিন চৌধুরী, বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক-এর সভাপতি জনাব কামাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, সিনিয়র সহ-সভাপতি জনাব আব্দুর রহিম হাওলাদার, ‘মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইন্ক’-এর উপদেষ্টা জনাব এম.এ সিদ্দিক পল্লব, তাসের খান মাহমুদ, কাজী আজহারুল হক মিলন ও আলী ইমাম শিকদার।নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইট্স থেকে তিনটি বাস ও বিভিন্ন জায়গা থেকে শতাধিক প্রাইভেট কার এসে পিকনিক স্পটে পৌঁছালে পুরো জর্জেস আইল্যান্ড পার্কটি যেনো ছোট বাংলাদেশে পরিণত হয়ে যায়। সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জনাব লুৎফর রহমানের সৌজন্যে পরিবেশিত হয় সকালের নাস্তা। চমৎকার আবহাওয়া আর লেকের সৌন্দর্য সব মিলিয়ে উপস্থিত শত শত মানুষের আনন্দ-উল্লাস ছড়িয়ে গেল পুরো আইল্যান্ডে।

বিভিন্ন বয়সের ছেলে মেয়েরা ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে। ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে ছিলেন ক্রীড়া সম্পাদক তারেক হাসান ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহরাব হোসেন। বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল ইসলাম চৌধুরী আরজু, উপদেষ্টা ম-লির এম এ সিদ্দীক পল্লব, তাসের খান মাহমুদ, আব্দুর রহিম হাওলাদার। ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন সদস্য সচিব মোঃ মঈন, প্রধান সমন্বয়কারী শেখ উজ্জ্বল, প্রচার সম্পাদক সোহেল রানাসহ রেজাউল করিম, লুৎফর রহমান, মুকুল খান, মনু তালুকদার, আবুল খায়ের আজাদ, সেলিম রেজা সহ আরো অনেকে।সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক-এর বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান জনাব এম আজিজ এবং বাংলাদেশ সোসাইটির বোর্ড অব ট্রাস্টির মেম্বার জনাব ওয়াসি চৌধুরীর সৌজন্যে পরিবেশন করা হয় দুপুরের খাবার। নানা রকমের সুস্বাদু খাবার আর সঙ্গীতশিল্পী সজীব ও হাসিন মাহমুদ-এর চমৎকার মন মাতানো সঙ্গীত পরিবেশনায় উপভোগ্য দুপুর গড়িয়ে বিকেল হয়ে যায়। সব বয়সের ছেলেমেয়েরা আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে।অনেকেই প্যাভিলিয়নে নাচে-গানে উল্লসিত হয়ে ওঠেন। খাবার পরিবেশনে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন নুরুল ইসলাম চৌধুরী আরজু, জয়নাল আবেদীন আমান, শেখ উজ্জ্বল, মোহাম্মদ মঈন, মনু তালুকদার, শফিকুল ইসলাম আক্তার, লুৎফর রহমান, সেলিম রেজা, মাসুম ব্যাপারী, মুকুল খান, জহিরুল ইসলাম বিল্টু, তারেক হাসান,খোরশেদ আলম।বিকেলের পড়ন্ত রোদে নরম ঘাসের উপর গোল হয়ে বসে শতাধিক মহিলারা অংশগ্রহণ করেন মিউজিক্যাল পিলো খেলায়।

তারেক হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত জমজমাট এ ইভেন্টে অংশগ্রহণকারী সকলকে পুরস্কার প্রদান করা হয় খোরশেদ আলমের সৌজন্যে। এ খেলায় বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন এম এ সিদ্দিক পল্লব, তাসের খান মাহমুদ, আব্দুর রহীম হাওলাদার, গোলাম হোসেন।বিকেলে অনুষ্ঠিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়ে মুন্সিগঞ্জবিক্রমপুরবাসীর আনন্দ উল্লাসে তারাও শরীক হন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির আসন্ন নির্বাচনে রব-রুহুল পরিষদের মোঃ রব মিয়া, রুহুল আমিন সিদ্দিকী এবং নয়ন-আলী পরিষদের মোহাম্মদ আলীসহ আব্দুর রহিম হাওলাদার, মনিকা রায় উপস্থিত ছিলেন।আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক-এর ক্রীড়া ও আপ্যায়ন সম্পাদক এবং মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর এসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নওশেদ হোসেন, বাংলাদেশ সোসাইটির কার্যকরী সদস্য সাদী মিন্টু, মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সমিতির অন্য আরেকটি অংশের সভাপতি জহিরুল ইসলাম প্যারিস, সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন, সাবেক সভাপতি ইকবাল হোসেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমান।পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল ইসলাম চৌধুরী আরজু।বনভোজন আয়োজন কমিটির আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীন আমান স্বাগত বক্তব্যে সকলের আন্তরিক সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহরাব হোসেন ও সদস্য সচিব মোহাম্মদ মঈন। ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে উপহার প্রদান করেন এম আজিজ, ওয়াসী চৌধুরী,এম.এ. সিদ্দিক পল্লব, তাসের খান মাহমুদ, জয়নাল আবেদীন আমান, শেখ উজ্জ্বল, লুৎফর রহমান, মোঃ মঈন,মাসুম বেপারী, শফিকুল ইসলাম আকতার, মুকুল খান, জহিরুল ইসলাম বিল্টু। বিভিন্ন বয়সী বিজয়ী ছেলেমেয়েরা হল তানজীম, সাজিদ, জাকারিয়া, আরিফ, নাহিন, মাহীন, আহমেদ সাজিদ, কোহেন রহমান, সামির ম-ল,ফাতেমা চৌধুরী, লালী, রাইনা, লামিয়া, আমিনা, ফামিয়া, সেজুতি, নিষাদ ও তাফিরা।

বিজয়ী সকলকে ক্রেষ্ট প্রদান করা কয় সংগঠনের সাবেক সভাপতি জনাব মহিউদ্দিন দেওয়ান এর সৌজন্যে। তারপর শুরু হয় র‌্যাফেল ড্র। উপস্থিত প্রায় পাঁচ শতাধিক মানুষের মধ্যে সৌভাগ্যবান এগারজন জিতে ছিল এগারটি আকর্ষণী পুরস্কার।নিউ ইয়র্ক-ঢাকা-নিউ ইয়র্ক রিটার্ন টিকেট ১ম পুরস্কার দেয়া হয় বাংলাদেশ সোসাইটির আসন্ন নির্বাচন ২০১৮-এর নয়ন-আলী পরিষদের সৌজন্যে। ২য় পুরস্কার ৫৫ ইঞ্চি টিভি দেয়া হয় আলম মোহাম্মদ জঙ্গীর সৌজন্যে। ৩য় পুরস্কার ৫৫ ইঞ্চি টিভি দেয়া হয় বাংলাদেশ সোসাইটির আসন্ন নির্বাচন ২০১৮-এর রব-রুহুল পরিষদের সৌজন্যে। ৪র্থ পুরস্কার ল্যাপটপ প্রদান করা হয় মেগা হোমস রিয়েলটির জনাব মঈনুল ইসলামের সৌজন্যে। ৫ম পুরস্কার ল্যাপটপ দেয়া হয় সন্দ্বীপ সোসাইটির সাবেক সভাপতি জনাব মাহফুজুল মাওলা নান্নুর সৌজন্যে।ইত্যাদি ক্যাশ এন্ড কারীর জে. মোল্লা সানীর সৌজন্যে দেয়া হয় ৬ষ্ঠ পুরস্কার আইপ্যাড। ৭ম পুরস্কার স্বর্ণের চেইন দেয়া হয় পিরান ফ্যাশনের নমির সৌজন্যে। ৮ম পুরস্কার ল্যাপটপ প্রদান করা হয় প্রিমিয়াম সুইটসের শাওনের সৌজন্যে। নিউ ইয়র্ক লাইফ ইন্সুরেন্সের সোহেল রানার সৌজন্যে ৯ম পুরস্কার দেয়া হয় ট্যাবলেট এবং মিনাবাজারের সৌজন্যে ১০ম পুরস্কার দেয়া হয় ডিনার সেট এবং ১১তম পুরস্কার দেয়া হয় শাহ সাইয়িদের সৌজন্যে শাড়ী। র‌্যাফেল ড্র পর্বটি পরিচালনা করেন মিঠুহামিদ। তাকে সহযোগিতায় ছিলেন নুরুল ইসলাম চৌধুরী আরজু, মোঃ সোহরাব হোসেন, জয়নাল আবেদীন আমান, মোঃ মঈন, শেখ শওকত উজ্জ্বল, লুৎফর রহমানসহ অনেকে। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল ইসলাম চৌধুরীর সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে বনভোজনের সমাপ্তি ঘটে এবং অন্যরকম এক ভালোলাগার আবেগ আপ্লুত মন নিয়ে সকলেই ঘরে ফিরে 

 
সর্বাধিক পঠিত
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ